Kerry Girling

I am a Motivational Speaker

KERRY GIRLING

Kerry Girling is an accomplished five-time Amazon Bestselling Author, Motivational Speaker, Film Producer and business enthusiast. He has over a decade and a half of experience inspiring humanity. Over one million people have experienced The Motivate Experience; Kerry’s unique motivational show. He has spread his powerful and motivating words through five hundred communities across North America. His presentations are accompanied by his five motivational books about moving on from what’s been holding you back in life, entitled The First Chapter Series.

  • Canada
  • 403 992 4722
  • Kerry@kerrygirling.com
  • www.kerrygirling.com
Me

My Professional Skills

In the realm of his recent accomplishments he has produced two short films and four educational documentaries on youth related issues and distributed them to high schools everywhere. And last but surely not least, his passion for business has led large companies to exceed well beyond their sales goals

Motivative 98%
Speaking 80%
Producing 95%
Friendly 100%

unique motivational

Kerry’s unique motivational show. He has spread his powerful and motivating words through five hundred communities across North America.

five motivational books

Our presentations are accompanied by his five motivational books about moving on from what’s been holding you back in life, entitled The First Chapter Series.

two short films

We have produced two short films and four educational documentaries on youth related issues and distributed them to high schools everywhere

huge results

Our commitment as a business leader brings huge results to companies he’s passionate to work with.

Well experienced

Early in life Kerry discovered an intense passion for inspiring youth. At the pinnacle of his career Kerry was faced with a life altering experience

Happy life

Kerry brings you on a spiritual journey of forgiveness and acceptance while sharing the most pivotal answers to finding happiness in all areas of life.

0
completed project
0
design award
0
facebook like
0
current projects
  • তালাকের নোটিশ নিয়ে কী বললেন শাকিব ও অপু?

     ভারতের হায়দরাবাদের রামুজি ফিল্ম সিটিতে এখন রাশেদ রাহা পরিচালিত ‘নোলক’ ছবির শুটিং করছেন চিত্রনায়ক শাকিব খান। সেখানে যাওয়ার আগে গত ২২ নভেম্বর অপু বিশ্বাসকে পাঠানো তালাকের নোটিশে তিনি স্বাক্ষর করেন। গতকাল সোমবার রাতে হায়দরাবাদ থেকে মুঠোফোনে প্রথম আলোর সঙ্গে আলাপে শাকিব খান বললেন, ‘আমি স্বাক্ষর করে দিয়ে এসেছি। এখন থেকে এ বিষয়ে যা কিছু বলার, আমার আইনজীবী বলবেন। আমি এখন শুটিং নিয়ে ব্যস্ত আছি। এরই মধ্যে নতুন কয়েকটি ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছি। প্রযোজক আর পরিচালকদের এই কাজগুলো নির্ধারিত সময়ের মধ্যে শেষ করে দিতে চাই।’
    ছেলে আব্রাম খান জয় প্রসঙ্গে শাকিব খান বলেন, ‘সে তো আমারই সন্তান। আমার সন্তানের ভালোর জন্য যা যা করার দরকার, আমি অবশ্যই তা করব।’
    এদিকে গতকাল সন্ধ্যায় অপু বিশ্বাস প্রথম আলোকে জানিয়েছেন, তিনি তখন পর্যন্ত তালাকের নোটিশ হাতে পাননি। মুঠোফোনে তিনি বলেন, ‘দুপুরে আমি বাবুকে (আব্রাম খান) খাওয়াচ্ছিলাম। হঠাৎ টেলিভিশনের স্ক্রলে খবরটি আমার নজরে আসে। এরপর মুঠোফোনে পরিচিতজনের কয়েকটি খুদে বার্তাও পেয়েছি। বিষয়টি আমাকে অবাক করেছে।’
    তালাকের নোটিশ পাঠানোর বিষয়টা অপুর কাছে এখনো অবিশ্বাস্য। তিনি বলেন, ‘আমি বিশ্বাস করতে পারছি না। গত মাসে ছেলেকে রেখে চিকিত্সা নিতে ভারতে যাওয়ার কারণে শাকিব খানের সঙ্গে আমার ছোটখাটো ভুল বোঝাবুঝি হয়। ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে সেই সময় সে হয়তো রাগ হয়ে কিছু একটা করে থাকতে পারে। কিন্তু তার কয়েক দিনের মাথায় আমার সঙ্গে শাকিবের সম্পর্ক স্বাভাবিক হয়ে যায়। আর এখন পর্যন্ত তা রয়েছে।’
    ভুল বোঝাবুঝির ঘটনার কয়েক দিন পর অপু ছেলেকে নিয়ে শাকিবের বাসায় যান। অপু বলেন, ‘শ্বশুর-শাশুড়ির সঙ্গে অনেক আন্তরিকভাবেই কথা হয়েছে। বাবু (আব্রাম খান) তার বাবার (শাকিব) সঙ্গে রাতে ঘুমিয়েছে। তখন শাকিবকে একজন দায়িত্ববান বাবা মনে হয়েছে আমার কাছে। মূলত তখন থেকেই স্ত্রী-সন্তানের প্রতি শাকিবের মধ্যে অনেক ইতিবাচক পরিবর্তন দেখেছি। এখন এসব খবর তো আমার বিশ্বাস হচ্ছে না।’
    এর আগে দুপুরে শাকিব খানের আইনজীবী শেখ সিরাজুল ইসলাম প্রথম আলোকে জানান, গত ২২ নভেম্বর শাকিব খান তাঁর চেম্বারে যান। অপুকে তালাক দেওয়ার ব্যাপারে তাঁর কাছে আইনি পরামর্শ নেন। এরপর শাকিবের পক্ষ থেকে ওই দিনই ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন মেয়রের কার্যালয়, অপু বিশ্বাসের ঢাকার নিকেতনের বাসা এবং বগুড়ার ঠিকানায় ওই তালাকের নোটিশ পাঠানো হয়। এই তালাক কার্যকর হবে নোটিশ পাঠানোর তারিখ থেকে তিন মাস পর। এই আইনজীবী বলেন, বিয়ের দেনমোহর বাবদ সাত লাখ টাকা অপুকে পরিশোধ করবেন বলে শাকিব তাঁকে জানিয়েছেন। এ ছাড়া তিনি একমাত্র সন্তান আব্রাম খান জয়ের ভরণপোষণের যাবতীয় খরচসহ দায়দায়িত্ব নিজে বহন করবেন।

    উল্লেখ্য, ২০০৮ সালের ১৮ এপ্রিল শাকিব খান ও অপু বিশ্বাসের বিয়ে হয়। এ বছর ১০ এপ্রিল বিকেলে একটি টেলিভিশন চ্যানেলে ছয় মাস বয়সের ছেলে আব্রামকে সঙ্গে নিয়ে বিয়ে ও সন্তানের ব্যাপারে প্রথম মুখ খোলেন অপু। এরপর শাকিব খান ও অপু বিশ্বাসের সম্পর্কের টানাপোড়েন তৈরি হয়।
  • অন্য মেহ্জাবীনের গল্প

     লাক্স-চ্যানেল আই সুপারস্টার হওয়ার পর প্রায় আট বছর ধরে নিয়মিত মডেলিং ও অভিনয় করছেন তিনি। সঠিক সময়ে শুটিং সেটে পৌঁছানো, পরিচালকের সঙ্গে সমন্বয় ও সহযোগিতায় খ্যাতি আছে তাঁর। তিনি মেহ্জাবীন। সম্প্রতি প্রথম আলোর মুখোমুখি হয়েছিলেন নিজের কিছু না-বলা গল্প বলতে। সঙ্গে ছিলেন হাবিবুল্লাহ সিদ্দিক
    ফ্ল্যাটের দরজা খুললেন মেহ্জাবীন। কুশল জিজ্ঞেস করেই দেখিয়ে দিলেন বসার ঘর। আমাদের বসিয়ে দিয়ে তিনি ভেতরে গেলেন গৃহকর্মীকে ডাকতে ডাকতে। আমরা অপেক্ষায় থাকলাম তাঁর। ‘সময়নিষ্ঠ’ বলে খ্যাতি পাওয়া মেয়েটি মিনিট তিনেকের মধ্যে হাজির হলেন বসার ঘরে। শুরুতেই জানতে চাই, লাক্স চ্যানেল আই সুপারস্টার না হলে কি কখনো অভিনয়ের জগতে আসতেন?
    কিছুক্ষণ ভাবলেন, ‘সে রকম কোনো সম্ভাবনা ছিল না। আসলে ওই প্রতিযোগিতার পরপরই আমার সামনে নতুন জগৎ খুলে যায়।’ কথার ফাঁকে জানিয়ে দেন, স্কুলে পড়ার সময় খেলাধুলার দিকে ঝোঁক ছিল। কে জানে, অভিনয়ের চৌকাঠে পা না রাখলে হয়তো খেলার মাঠ দাপিয়ে বেড়াতেন তিনি। মেহ্জাবীন বলেন, ‘আমি তো দেশের বাইরে থেকে এসে প্রতিযোগিতায় নাম লিখিয়েছিলাম। এ কারণে ঠিক জানতাম না বিজয়ী হওয়ার পর কী কাজ হবে আমার! পরে সবার পরামর্শে মডেলিং শুরু করি।’ এটুকু বলে থামেন তিনি। শুরুতে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন কোনোভাবেই অভিনয় করবেন না। সেই কথা মনে পড়তেই হাসতে হাসতে বলেন, ‘এটা বললে তো অনেকে আমাকে মারবেন। আমি দেশে এসে ঠিকমতো বাংলা পড়তে পারতাম না। ফলে চিত্রনাট্য পড়া হতো না। তাই মডেলিংয়েই থাকব বলে ঠিক করেছিলাম। পরে আস্তে-ধীরে বাংলা শিখে নিয়েছি। এখন বাংলায় প্রিন্ট করা কোনো কিছু পড়তে সমস্যা হয় না।’
    পড়তে সমস্যা না হলেও লিখতে এখনো সমস্যায় পড়েন তিনি। নাটকে যদি কোনো কারণে বাংলায় কিছু লেখার দরকার পড়ে, সত্যি সত্যিই বিপদে পড়েন তিনি।

    নিজে বিপদে পড়লেও মেহ্জাবীন সাধারণত পরিচালকদের বিপদে ফেলেন না। অনেক পরিচালক জানান, মেহ্জাবীন ‘প্যারা’ দেয় না!
  • ‘নোলক’–এ শাকিবের এক ঝলক

     ১ ডিসেম্বর থেকে ভারতের হায়দরাবাদে ‘নোলক’ সিনেমার শুটিং শুরু হয়েছে। চলবে এ মাসের তৃতীয় সপ্তাহ পর্যন্ত। এদিকে শুটিং শুরু হওয়ার পাঁচ দিন পর ছবির নায়ক শাকিব খানের ‘ফার্স্ট লুক’ প্রকাশের সিদ্ধান্ত নেন পরিচালক রাশেদ রাহা। তাঁর মতে, এর মধ্য দিয়ে ‘নোলক’ সিনেমায় শাকিব খানের চরিত্র সম্পর্কে কিছুটা ধারণা পাবেন দর্শক। আজ বুধবার সকালে প্রথম আলোর সঙ্গে আলাপে তেমনটাই জানালেন রাশেদ রাহা।
    ‘শিকারী’ সিনেমা মুক্তির পর শাকিব খান নিজেকে পুরোপুরি বদলে ফেলেছেন, এমনটা মনে করছেন দেশের সিনেমার পরিচালক আর প্রযোজকেরা। সিনেমাটি মুক্তির আগে ‘ফার্স্ট লুক’ দিয়ে আলোচিত হন তিনি। এরপর শাকিব খানের যে সিনেমাগুলো মুক্তি পেয়েছে, সব কটিতে পরিচালকেরা তাঁর ‘ফার্স্ট লুক’ প্রকাশ করে নায়কের চরিত্র সম্পর্কে ধারণা দিয়েছেন। এবার ‘নোলক’ সিনেমার পরিচালকও সেই পথেই হাঁটছেন।
    জানা গেছে, আজ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে সন্ধ্যায় ‘নোলক’ সিনেমার শাকিব খানের ফার্স্ট লুক প্রকাশ করা হবে। তার আগে হায়দরাবাদ থেকে শাকিব খান প্রথম আলোকে বলেন, ‘একটা সিনেমার ক্ষেত্রে “ফার্স্ট লুক” গুরুত্বপূর্ণ। ট্রেলার, টিজার দেখে সিনেমা সম্পর্কে দর্শক যেমন আগাম ধারণা পান, ঠিক তেমনি ফার্স্ট লুক দেখেও সিনেমাটি দেখার ব্যাপারে আগ্রহী হন। বিষয়টা ভালোভাবে টের পেয়েছি “শিকারি” সিনেমা থেকে। এরপর যে কয়টি সিনেমার ফার্স্ট লুক প্রকাশিত হয়েছে, সব কটির জন্য প্রশংসা পেয়েছি।’
    এদিকে পরিচালক রাশেদ রাহা ‘নোলক’ সিনেমায় শাকিব খানের ‘ফার্স্ট লুক’ নিয়ে দারুণ আশাবাদী। তিনি বলেন, ‘এই সিনেমায় শাকিব খানকে একেবারে নতুন রূপে দেখা যাবে। সিনেমায় তিনি মোটরবাইক রেসিং করবেন। ট্রেলার আর টিজার প্রকাশের আগে তাই দর্শকদের আমরা শাকিব খানের চরিত্র সম্পর্কে ধারণা দিতে চাই। শাকিব খানের আগের কয়েকটি সিনেমার “ফার্স্ট লুক” সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়। আমার বিশ্বাস, এই সিনেমার ফার্স্ট লুকও দর্শক সেভাবেই পছন্দ করবেন।’
    ‘নোলক’ সিনেমার শুটিং হচ্ছে ভারতের হায়দরাবাদের রামোজি ফিল্ম সিটিতে। এই সিনেমায় শাকিবের বিপরীতে অভিনয় করছেন ববি। পরিচালক রাশেদ রাহার প্রথম সিনেমা। এর আগে এই পরিচালক কয়েকটি নাটক নির্মাণ করেন। এই সিনেমার প্রযোজকও একজন তরুণ। দুই তরুণের এই মেলবন্ধনকে স্বাগত জানিয়েছেন শাকিব খান। তিনি বলেন, ‘আধুনিক ও মানসম্মত বাংলা সিনেমা “নোলক”। যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে যে ভালো বাংলা সিনেমা নির্মাণ করা যায়, এটি হবে তার উদাহরণ। আর তা তরুণেরাই করে দেখাবে।’
    শাকিব খান ও ববি ছাড়া ‘নোলক’ সিনেমায় আরও আছেন মৌসুমী, ওমর সানী প্রমুখ।
  • বিরাটের জীবনে আরও দুই নায়িকা!

     ভারতের ক্রিকেট দলের অধিনায়ক বিরাট কোহলি আর বলিউড তারকা আনুশকা শর্মার বিয়েকে ঘিরে প্রতিদিনই কিছু না কিছু গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। অনেকেই প্রশ্ন করছেন, বিরাট আর আনুশকার বিয়েটা কবে হচ্ছে? এবার বিয়েটা হচ্ছে তো?
    শোনা যাচ্ছে, বিরাট নাকি অনেক দিন আগেই বিয়ের পর্ব সারতে চেয়েছিলেন। কিন্তু আনুশকা চাননি। তাড়াহুড়ো করে বিয়ে! মোটেই না। তিনি চেয়েছিলেন আগে নিজের ক্যারিয়ার গড়তে। অসুবিধা নেই, ভারতের ক্রিকেট দলের এই অধিনায়ক যে আনুশকার প্রেমে পাগল, তা তো সবারই জানা। কিন্তু এখন শোনা যাচ্ছে অন্য খবর—আরও দুই নায়িকার প্রেমে পাগল ছিলেন বিরাট। ‘বাহুবলী’ ছবির নায়িকা তামান্না ভাটিয়ার প্রেমে হাবুডুবু খেয়েছেন তিনি। বিজ্ঞাপনের শুটিং করতে গিয়ে তাঁদের পরিচয়। পরিচয় থেকে ধীরে ধীরে বন্ধুত্ব, এরপর তা ভালোবাসায় পরিণত হয়। ২০১২ সালে বিরাট চুপি চুপি তামান্নার সঙ্গে দেখা করতেন।
    কিন্তু বিরাট আর তামান্নার মাঝে চলে আসেন আরেকজন, তিনি ইজাবেল লাইট। ব্রাজিলিয়ান বংশোদ্ভূত এই মডেল তখন মুম্বাইয়ে এসেছিলেন ছবির কাজে। বলিউডে দুটি ছবিতে অভিনয় করেন তিনি, ‘সিক্সটিন’ আর ‘পুরানি’। এক পার্টিতে প্রথম দেখা হয় বিরাট আর ইজাবেলের। প্রথম দেখাতেই ব্রাজিলের এই সুন্দরীকে মনে ধরে বিরাটের। ছবির কাজে প্রায় দেড় বছর ইজাবেল ভারতে ছিলেন। আর এ সময় বিরাট আর ইজাবেল একে অপরের কাছে আসেন। দুজনের ঘনিষ্ঠতা ক্রমেই বাড়তে থাকে। শোনা যায়, তাঁরা দুজন নাকি সিঙ্গাপুরে গিয়ে একে অপরের সঙ্গে দেখা করতেন। তবে বিরাটের সঙ্গে ইজাবেলের প্রেম বেশি দিন টেকেনি। ২০১৩ সালে নভেম্বরে তাঁরা একে অপরের কাছ থেকে দূরে সরে যান।
    এদিকে অনেকে ধরেই নিয়েছেন, ৯ থেকে ১২ ডিসেম্বরের মধ্যে যেকোনো দিন ইতালিতে বিরাট আর আনুশকার চার হাত এক হতে চলেছে। কিন্তু আনুশকার মুখপাত্র মণিকা ভট্টাচার্য এই দুই তারকার বিয়ের খবরকে তুড়ি মেরে উড়িয়ে দিয়েছেন। আবার আজ শুক্রবার প্রকাশিত ভারতের এক দৈনিকের খবর অনুযায়ী, ৯ থেকে ১২ ডিসেম্বরের মধ্যে তাঁদের বিয়ে হওয়ার সম্ভাবনা আছে। আর বিয়েটা হচ্ছে ইতালিতে।

    আনুশকার প্রতিবেশীরা নাকি এরই মধ্যে বিয়ের নিমন্ত্রণ পেয়েছেন। আনুশকা এখন মুম্বাইয়ের ভারসোভার বন্দ্রীনাথ টাওয়ারে থাকছেন। আনুশকার বাবা অজয় কুমার শর্মা নিজে ফোন করে বহুতলের কয়েকজন বাসিন্দাকে মেয়ের বিয়েতে ইতালিতে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। এ সবকিছু মনে করিয়ে দিচ্ছে প্রযোজক-পরিচালক আদিত্য চোপড়া এবং বলিউড তারকা রানী মুখার্জির বিয়ের কথা। ঠিক এমনটাই হয়েছিল তাঁদের বিয়েতে। আদিত্য আর তাঁর প্রেমিকা রানী চুপিচুপি ইতালিতে গিয়ে বিয়ে করেন। তাই মনে প্রশ্ন জাগতেই পারে, আনুশকা কি বিয়েতে তাঁর মেন্টর আদিত্য চোপড়াকেই অনুসরণ করছেন?
  • বিপিএলে কেমন করছেন সাকিব-তামিমরা?

     জাতীয় দলের প্রায় সব খেলোয়াড়ই আছেন বিপিএলে। কিন্তু আসরটিতে সর্বোচ্চসংখ্যক ছক্কা হাঁকানো ‘ওঁরা ১১ জন’-এর তালিকায় ঠাঁই করে নিয়েছেন কিনা জাতীয় দলের বাইরের এক খেলোয়াড়! সহজ কথায়, ঘরোয়া ক্রিকেটের এক দুর্নিবার অলরাউন্ডার।
    এবার বিপিএলের ঢাকা পর্ব পর্যন্ত সর্বোচ্চ ১৪টি ছক্কা মেরেছেন ক্যারিবীয় ওপেনার এভিন লুইস। তাঁকে অনুসরণ করছেন যথাক্রমে কার্লোস ব্রাফেট (১২), লুক রনকি (১১) কাইরন পোলার্ড (১১) আর ক্রিস গেইল (৯)। অর্থাৎ ছক্কাবাজদের তালিকায় শীর্ষ পাঁচের চারজনই ক্যারিবিয়ান। আশ্চর্যের ব্যাপার হলো, পরবর্তী ছয় শীর্ষ ছক্কাবাজের মধ্যে বাংলাদেশি মাত্র একজন!
    গেইলের সমান ৯টি ছক্কা মেরে তালিকার ছয়ে আরিফুল হক (গেইল বাউন্ডারি বেশি মারায় তাঁর এক ধাপ ওপরে)। পরের শীর্ষ পাঁচজনের মধ্যে আন্দ্রে ফ্লেচার শুধু ৮টি ছক্কা মেরেছেন। এ ছাড়া বাকি চারজনের—মারলন স্যামুয়েলস, শহীদ আফ্রিদি, দানুশকা গুণাথিলাকা, সুনীল নারাইন—ছক্কাসংখ্যা সমান ৭টি করে। অর্থাৎ শীর্ষ এগারোতে একমাত্র বাংলাদেশি খুলনা টাইটানসের আরিফুল হক।
    আরিফুলের পর বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে সর্বোচ্চ ৭টি করে ছক্কা ইমরুল কায়েস, মুমিনুল হক ও সাব্বির রহমানের। এ তিন ব্যাটসম্যানের মধ্যে শুধু সাব্বিরেরই টি-টোয়েন্টি দলে জায়গা পাকা। ইমরুল তো সব দলেই অস্থায়ী হয়ে পড়ছেন আর মুমিনুলের গায়ে ‘টেস্ট ক্রিকেটার’ ট্যাগ লাগিয়ে দেওয়া হয়েছিল টিম ম্যানেজমেন্টের পক্ষ থেকে। সত্যিই বিপিএলের লীলা বোঝা দায়!সর্বোচ্চ ইনিংসেও বিদেশিদের আধিপত্য। শীর্ষ দশে বাংলাদেশি মাত্র দুজন! সাব্বির ও মুমিনুল। রংপুর রাইডার্সের বিপক্ষে ৭০ রানের ইনিংসটি দিয়ে তিনে এসে গেছেন সাব্বির। রাইডার্সের বিপক্ষেই ৬৩ রানের ইনিংস দিয়ে নয়ে মুমিনুল। শীর্ষস্থানীয় লুক রনকিও ৭৮ রানের ইনিংসটি খেলেছেন রাইডার্সদের বিপক্ষে।
    ব্যাটিং গড়ে শীর্ষ পাঁচে ঠাঁই পাননি কোনো দেশি ক্রিকেটার। ২ ম্যাচে ৯৩.০০ গড় নিয়ে শীর্ষে লেন্ডল সিমন্স। দ্বিতীয় আরেক ক্যারিবীয় স্যামুয়েলস (৫ ম্যাচে ৭৬.৫০ গড়)। পরবর্তী তিনজন যথাক্রমে—রবি বোপারা (৬ ম্যাচে ৭৩.০০ গড়), শোয়েব মালিক (২ ম্যাচে ৬৩.০০ গড়) এবং ডোয়াইন স্মিথ (১ ম্যাচে ৬২.০০ গড়)। ব্যাটিং গড়ে দেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে শীর্ষে ইমরুল কায়েস। ৬ ম্যাচে ৫০.২৫ গড় নিয়ে আছেন ছয়ে।
    স্ট্রাইক রেটের হিসেবেও জাতীয় দলের তারকা ব্যাটসম্যানদের খামতির প্রশ্ন উঠতে পারে। শীর্ষ কুড়িতে মধ্যে আছেন মাত্র তিনজন! এর মধ্যে দুজনের তো আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেকই হয়নি। ৩ ম্যাচে ১৭০.৫৮ স্ট্রাইক রেট নিয়ে দেশি ক্রিকেটারদের নেতৃত্ব দিচ্ছেন রাজশাহী কিংসের জাকির হোসেন (১০ম)। ১৩তম স্থানে আরিফুল হকের স্ট্রাইকরেট ৬ ম্যাচে ১৬১.৫৩। জাতীয় দলের খেলোয়াড়দের মধ্যে শীর্ষ কুড়িতে ঠাঁই করে নেওয়া একমাত্র ক্রিকেটারের পরিচয় আবার বোলিং অলরাউন্ডার। কুমিল্লার হয়ে ৬ ম্যাচে ব্যাট করে ১৫০.০০ স্ট্রাইকরেটে রান করেছেন মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন।
    বিপিএলে এখনো কেউ সেঞ্চুরি পাননি। সর্বোচ্চ তিনটি ফিফটি টি-টোয়েন্টির ‘অখ্যাত’ খেলোয়াড় উপুল থারাঙ্গার। দুটি ফিফটিতে তাঁর পেছনে আছেন তিন ক্যারিবীয়—গেইল, পোলার্ড ও লুইস। বাংলাদেশের কোনো ব্যাটসম্যানের নেই একের অধিক পঞ্চাশ ছাড়ানো ইনিংস। সর্বোচ্চ রানে শীর্ষ তিনেও নেই কোনো বাংলাদেশি। ৬ ম্যাচে ২০১ রান নিয়ে দেশি ক্রিকেটারদের নেতৃত্ব দিচ্ছেন ইমরুল (৩য়)।

    বোলিংয়ে সর্বোচ্চ উইকেটসংখ্যায় অবশ্য দেশি ক্রিকেটারদের ভালোই আধিপত্য। খুলনার পেসার আবু জায়েদ রাহী ৬ ম্যাচে ১২ উইকেট নিয়ে আছেন এখানকার নেতৃত্বে। আবু জায়েদসহ শীর্ষ চারের তিনজনই দেশি—আবু হায়দার (৭ ম্যাচে ১১ উইকেট) ও সাকিব আল হাসান (৭ ম্যাচে ১০ উইকেট)। ৪ ম্যাচে ১১ উইকেট নিয়ে এখানে ‘কাবাব মে হাড্ডি’ হয়েছেন শহীদ আফ্রিদি। শীর্ষ দশ বোলারের মধ্যে ছয়জনই দেশি।
    সেরা বোলিং ফিগার সাকিবের (৩.৫-০-১৬-৫)। তবে শীর্ষ দশে দেশি বোলারদের মধ্যে ঠাঁই করে নিতে পেরেছেন শুধু আবু জায়েদ। শীর্ষ দশে একাই তিনবার জায়গা পেয়েছেন খুলনার এই পেসার। কিপটেমিতে শীর্ষ পাঁচে কোনো দেশি বোলারের জায়গা হয়নি। ৫ ম্যাচে ওভারপ্রতি ৫.৮৪ গড়ে রান দিয়ে দেশি বোলারদের নেতৃত্বে সোহাগ গাজী (ষষ্ঠ)। বোলিং স্ট্রাইক রেটের শীর্ষ চারেও একমাত্র দেশি সেই আবু জায়েদ।
    অর্থাৎ ব্যাটিং কিংবা বোলিং—কোনো জায়গাতেই জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা এখনো নিজেদের নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি। চট্টগ্রামে কী ঘটে, এখন সেটাই দেখার অপেক্ষা।
  • BELIEFS AND VALUES

    “In this world of over seven billion people, there are literally hundreds of millions of people that don’t ever experience the things that we take for granted every day.”
    Our negative experiences help us live happier lives. Without them we couldn’t differentiate between happiness and suffering. In fact, our biggest mistakes teach us the biggest life lessons. It’s important to view all our experiences with open mind. In reality, no experience is either positive or negative; they just are. It’s our differentiating beliefs, values and perspectives that determines whether an experience is either positive or negative in nature. Finding the positives in any situation is important to help increase our everyday happiness. Happiness resides in all of the experiences we live through; both positive and negative ones. Even the negative situations have their benefits. Knowing this can help you look at negative situations in a positive manner. It will help build a healthy belief system.
    Happiness resides everywhere. It resides in the conversations with our coworkers and in traffic jams. It comes from our families and friendships. It even resides in the hardship that we’ve lived. In fact, it resides in every experience we live. Unfortunately very few see it that way. The majority of us are determined that happiness resides only within the latest technology or through our monthly pay cheque. This type of belief only leads to inner hardship.
    When I was a young boy, as far as I can remember, I didn’t see life through the same perspective as I do today. In fact, my views of the world are constantly changing. Each experience has helped me shape my inner beliefs and values. Through the years I’ve learned that harvesting positive beliefs of any kind helps inspire my passions and is one of the key fundamentals to finding true inner happiness. Weather your beliefs were taught in school, or if you picked them up from the pastor of your church, each of your beliefs assist you towards living a happy and truly content lifestyle.
    We generate our beliefs through various forms. Mostly through our friends and closest relatives. These people are the ones we trust in. We believe nearly everything they say. However, even though a belief may have already been formed, it doesn’t mean it is there to sty forever. You can simply replace it with something better. Taking a look at your own beliefs will help you determine where they were formed it in the first place. By acknowledging a belief, you’re accenting it, enabling you to determine if it is in line with your current values. Much like our ever-changing beliefs; our values are changing just as rapidly. Sometimes we need a reality check to see if our beliefs and values are in line with the image we perceive our happiness to be.
    What does your mind tell you to believe in? What self-defeating beliefs do you hold about yourself or the world around you? Start with eliminating them one at a time. You’ll be glad you did.
  • THE LAW OF ATTRACTION – FINDING YOUR HAPPINESS

    This topic has been explored more in the last decade than most. In fact, it’s an active part of millions of people’s daily regimen. It’s something that has brought more happiness than anything else. In fact, it’s something I personally have adhered to like cement over the past five years. It’s also a huge source of my own happiness.
    Happiness isn’t something that will last forever unless it’s properly cultivated. It’s made of properties that flounder quite quickly, especially if it isn’t embraced. It’s like a driver’s license; a privilege, not a right. You don’t actually own the happiness unless you embrace it and respect it.
    What do I mean by this?
    Happiness doesn’t come in physical form. It’s a mental thing. It’s something your mind creates from thin air. Well, not actually. Happiness is generated from thoughts, but that’s all. If you don’t take the time to visualize your goals in life, or make an effort to get to know yourself through properly understanding your passions and ambitions, values and beliefs, etc, there’s very little opportunity for you to embrace any realm of happiness. Happiness comes to those who believe in themselves; those who appreciate their lives, and those who are grateful. It doesn’t come to those expecting it, or those ungrateful. Happiness however is withdrawn from one who commits a crime, abuses others, or does something against their own values and beliefs. One of the best ways to visualize is to implement the Law of attraction.
    It’s been agreed by hundreds of scientists across the Nation that thoughts equal things. Although this may be tough to process, it’s an integral part of the Law of attraction and bringing it into fruition. With practise you will develop a strong ability to bring your thoughts into reality.
    Often times, I like to think of life as a video game. The mechanics are virtually the same. In fact, Google is one of the closest synthetic forms of reality (the online search engine). It may sound funny comparing our human reality with that on the computer screen, but video game technology is really a synthetic form of reality. In fact, there are endless options when producing these video games because everything is possible. That’s the interesting thing when comparing the two, the same goes with our human lives; anything is possible.
    Your reality is only as strong as your belief system. If you believe you can achieve it you will. If you don’t you won’t. Understanding this will enable you to embrace more powerful forms of thought. Think about it; your entire day is built on thoughts. Every aspect of your life is generated through thought. Every decision you make is based solely on the results of your thoughts. This in itself should entice you to start thinking more positive. Your life will not process anything you do not believe. If you believe in the Law of attraction it will work for you. If you don’t it won’t.
     Exercise: Envisioning your ideals
    This exercise requires the willingness to explore your mindset.
    The Law of attraction is based on the belief that your thoughts are in direct reflection to the results you experience. This means; if you think positive you’ll reap positive rewards, however the opposite is true for negative thinking. If negative thoughts enter your mind you’ll flounder in negativity. I want you to take this information in and absorb it as though it were 100% tested, tried and true, because it has been. In fact, the Law of attraction has been assisting people to happiness for plenty of decades. It’s only recently been brought to public light. It works. You just need to let it work for you.
    Let’s start with a simple exercise that will introduce you to the Law of attraction. This technique is a visual exercise that’ll help you tap into your imagination which will allow you to alter the outcome of your future reality. I know it sounds a little too outrageous to believe, however those who believe in the Law of attraction are those living fulfilling lives, remember?
    First of all, find a nice quiet, comfortable place where you can relax. Somewhere out of the way of noisy distractions. You don’t need any props, just your mindset. Ideally, implementing breathing exercises before and after this experience is recommended, however, due to simplicity let’s skip the breathing stuff. Okay, imagine your ideal lifestyle. What does it look like? I want you to delve as deep as you can with this one. Imagine your ideal lifestyle. How old are you in your vision? Get as detailed as possible. Do you have any kids? If so, what are their names? What kind of career are you fulfilling? Take it a step further … what kind of money do you make? Are there any materialistic items, like a fancy car, or houseboat that you’ve added to your ideal image? Even think of the simplistic details. The ones you already overlooked. Are there any pets in the picture? Where do you live? Don’t just pick any house, imagine your most desired home. The one you saw the other day that made you gawk and awe as you drove by. Now let’s get into the nitty-gritty of it all. What type of coworkers do you work with? Who are your closest influences? What types of hobbies and passions do you fulfill? I think you get the point.
    The Law of attraction takes intense dedication and belief to be brought into fruition. Without the intense desire and belief in its possibilities you’re destined to fail before you even start. The more you practice the more rewards you’ll experience. This is a fun activity that will allow you to explore your imagination into great depths. When was the last time you tapped into your imagination this actively?
    The law of attraction helps you excel at your goals and ambitions. It’s the easiest way to keep track of your efforts in achieving optimal happiness. You are only one that can visualize your thoughts. This means; you’re the only one that can leverage the effect of your thoughts. By taking the law of attraction seriously you’re ahead of those that resist. It makes complete sense that thoughts equal things. This is why it has already helped numerous people excel in all areas of life. Those that resist its power will unfortunately continue living in mediocrity. I encourage you to take the Law of attraction seriously for at least thirty days. I guarantee you’ll be amazed with the results.
    I remember one of the first times when the law of attraction worked for me. Here’s the story.

    My Soul-mate search
    I had just ended a relationship with my first wife in September of 2010. We were separated for divorce. I felt lost and insignificant because I had lost my companion; the person I leaned on for support, and the one that had been there with me for the past seven years. Instantly I felt distant from society. It felt like I had lost everything I had worked towards. In fact, all of my previous accomplishments felt insignificant too.
    A couple of days after our break-up, some of my friends were trying to boost my spirits up because they saw how much of a negative toll the separation had taken on me. At first, they seemed like they were joking as they introduced to me an online dating site that offered the possibility of finding the perfect soul mate. I immediately thought it was a stupid idea however after talking to a few people around the table whom had already witnessed positive results from it, I decided to look at it with a little more depth.
    When I got home that evening, I rushed to my computer and turned it on. I had no idea what to do from there. I asked a friend to come over to help. In less than an hour later I had an active online dating account. It was kind of awkward at first, as I scrolled through all the various profiles. It felt like I was a customer at the grocery store looking for the best cut of beef (Okay, bad analogy), but I soon learned the algorithm of the online dating world, and I was well on my way to finding my perfect soul mate – at least that’s what they guaranteed.
    After a few hours I had read over a few dozen profiles. I then put the computer aside and pondered my thoughts about the whole online dating situation. I knew there were negative aspects to the realm, like having to financially afford the multiple dates and finding the time for it all; all of which seemed to be a hindrance, but I soon dismissed those thoughts altogether, turned my computer back on and continued searching more online profiles. It got addictive quickly.
    After eliminating all negativity from my mind, I grabbed a piece of paper and pen and jotted down every feature I wanted my perfect soul mate to have; like passion, charisma, sense of humour, etc. My list soon turned into a novel. I went into the great depths and wrote down every single thing that was important to me within a relationship. I no longer wanted to see failure within my close relationships. I was tired of seeing divorce in my perspective. I wanted to alter my happiness to a healthier state. This meant healthier relationships. I desperately needed to find someone who shared similar beliefs and values. Someone that would support my beliefs and encourage me to be the best I could be. I scribbled with my pen for hours. I wrote until I was tired of writing.
    After vigorously playing the happiness picture in my mind, I finally had a clear image of happiness; at least within a relationship. As I went through the hundreds of profiles thereafter, I listened to my instincts which told me who to contact. Four days later I met my exact description – Melanie. It’s been five and a half years since we met and I can say that I am happily married to my best friend. We now have two wonderful children together. They surely add to my happiness.
    Experiencing Melanie as my best friend has already been an incredible experience. We share the same goals, similar beliefs and we encourage each other on a regular basis. Life with her is exciting and passionate. After she came into my life I was sold on the law of attraction. I knew that if I found her with the power of my thoughts then I could use the same principles for my other desires.
    You too can experience similar results in your life if you let the Law of attraction work for you. You are the creator of your own destiny. You are the one that calls the shots in your life. Be proactive and don’t let time pass by too quickly without trying to find your ideal happiness. With a little effort you can find your passion, and with consistent effort you can take your passion to unbelievable heights. That passion, whatever it is, can be found by visualizing and allowing the Law of attraction to manifest your visions. Your deepest desires are waiting for you. The environment acts the same as it does for everyone. If you use your thoughts efficiently and you grasp onto the opportunities that come to you, you’ll bring happiness in abundance.
  • Creating a BETTER WORLD through BETTER PEOPLE

    Kerry’s master plan to living a fulfilling life will inspire even the skeptical. His revolutionary techniques to eliminating the negativity will encourage a wealth of prosperity to those who instill his methods into their everyday regimen. His proven success formula is driven through years of personal life tests and vigorous life enhancements. Everyone who has enlisted Kerry’s life coaching techniques have over performed within days.

    ADDRESS

    Canada

    EMAIL

    Kerry@kerrygirling.com

    TELEPHONE

    403 992 4722

    MOBILE

    403 992 4722